আল্লামা জালালুদ্দিনের ওপর হামলা : হেফাজতের মুখে শেখ ফরিদ বগলে ইট

হেফাজতে ইসলামের সমাবেশ থেকে চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের খতিব ও জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আল্লামা জালালুদ্দিন আলকাদেরীর ওপর হামলা চালানো এবং তাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয় আজ শুক্রবার জুমার নামাজের পর। জুমার নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সমাবেশে আসা হেফাজতের কর্মী-সমর্থকরা আল্লামা জালালুদ্দিন আল কাদেরীকে লাঞ্চিত করে। এসময় তাকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে তারা। প্রায় ৫ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকার পর জালালুদ্দিন আল কাদেরীকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায় পুলিশ। এ ঘটনার প্রতিবাদে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আত নেতারা বলেন, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করতে চায়। সংগঠনটির ব্যাপারে সরকারকে কঠিন সিদ্ধান্ত নেয়ারও দাবি জানান তারা।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে পাঁচটায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আতের সদস্য সচিব এডভোকেট মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার। তিনি বলেন,‘ওয়াহাবী-মওদুদীরা এর আগেও বারবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে হামলা করেছে। এসব করে পার পেয়ে যাওয়ায় এরা বারবার দেশের মসজিদের সম্মানিত খতিবদেরকে মসজিদে হামলা করে জঙ্গীবাদী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।‘তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা না করলে দেশ জঙ্গিবাদীদের দখলে চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে উল্লেখ করে তিনি। মোছাহেব উদ্দিন বলেন,‘যেখানে আল্লার ঘর মসজিদেই আলেমদের নিরাপত্তা নেই সেখানে অন্যত্র নিরাপত্তা কতটুকু।’মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার বলেন,‘জাতি আবারো দেখলো হেফাজতীদের এজিদী আচরণ। ৬১ হিজরিতে এজিদ বাহিনী ইমাম হোসাইনকে শহীদ করে ক্ষান্ত হয়নি। তারা মক্কার হেরম, মসজিদে নববী শরীফে হামলা, রক্তপাত ও জুলুমের রাজত্ব কায়েম করেছিল। আবারো সেই পুরনো চেহারায় ধরা পড়েছে নব্য এজিদি হেফাজতী-ওহাবীরা।’ তিনি অভিযোগ করেন,‘আল্লাম জালালুদ্দিনকে মেরে ফেলার উদ্দ্যেশ্যে সশস্ত্র আক্রমণ ও অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। আমরা এর প্রতিবাদ জানানো ভাষা পাচ্ছি না।’ তিনি বলেন,‘এরা এতই জঘন্য হতে পারে যে জনগণ ধারণাও করতে পারে না। এদের মুখে শেখ ফরিদ কিন্তু বগলে ইট। তাই সবাইকে এদের বর্জনের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’ মোছাহেব উদ্দিন বলেন, ‘এরা জঙ্গী, এদের কওমি মাদ্রাসাগুলো জঙ্গী প্রজনন কেন্দ্র। এদের জঙ্গী প্রশিক্ষণ রয়েছে। সুতরাং এরা যে কোন সময়ে দেশে বড় ধরণের সংঘাতের জন্ম দিতে পারে।’
হেফাজত নেতাদের আদেশেই জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের খতিবের উপর হামলা হয়েছে অভিযোগ করে বখতিয়ার বলেন,‘ জঙ্গী সংগঠনের নেতাদের উসকানিতেই জালালুদ্দিনের উপর দ্বিতীয় বারের মতো হামলা করা হয়েছে।’নির্দেশদাতাদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন,‘এবারো পার পেয়ে গেলে তাদের সাহস আরো বেড়ে যাবে।’ এদিকে জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের খতিবের ওপর হামলার প্রতিবাদে নগরীর জামালখানে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আত। এছাড়া বিভিন্ন জেলা উপজেলায়ও বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

Advertisements

Leave a comment

Filed under Bangladesh

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s